Menu

শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর – একাদশ শ্রেণী

শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর; আজকের আমাদের এই আর্টিকেলে আমরা নিয়ে হাজির হয়েছি একাদশ শ্রেণির শিক্ষাবিজ্ঞানের শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর যা তোমাদের পাঠ্য বইয়ের দ্বিতীয় অধ্যায়।

 

শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর

একাদশ শ্রেণী (শিক্ষাবিজ্ঞান)

 

শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলি হল নিম্নরূপঃ

 

১) শিক্ষার উপাদান কটি ও কী কী?

উত্তরঃ শিক্ষার উপাদান মূলত চারটি। যথাঃ ক) শিক্ষার্থী, খ) শিক্ষক, গ) পাঠক্রম এবং ঘ) বিদ্যালয়।

২) বংশধারা বলতে কী বোঝায়?

উত্তরঃ পিতৃকুল এবং মাতৃকুল থেকে আগত বৈশিষ্ঠ গুলিকে বলা হয় বংশধারা।

৩) বংশধারার ক্ষুদ্রতম উপাদান কোনটি?

উত্তরঃ বংশধারার ক্ষুদ্রতম উপাদান হল জিন।

৪) মানুষের একটি ক্রোমোজমে কটি জিন থাকে?

উত্তরঃ মানুষের একটি ক্রোমোজমে ১ হাজারেরও বেশি জিন থাকে।

৫) মানুষের কোশে ক্রোমোজমের সংখ্যা কটি?

উত্তরঃ মানুষের কোশে ক্রোমোজমের সংখ্যা ২৩ জোড়া অর্থাৎ ৪৬ টি।

৬) পাঠক্রম শব্দটির অর্থ কী?

উত্তরঃ পাঠক্রম শব্দটির অর্থ হল শিক্ষার লক্ষে পৌঁছানোর পথ বা উপায়।

৭) পাঠক্রম কথাটির ইংরেজি প্রতিশব্দ কী? এই শব্দটি কোন ল্যাটিন শব্দ থেকে এসেছে?

উত্তরঃ পাঠক্রম কথাটির ইংরেজি প্রতিশব্দ curriculum, এই শব্দটি ল্যাটিন শব্দ currere থেকে এসেছে।

৮) পাঠক্রম কতপ্রকার ও কী কী?

উত্তরঃ পাঠক্রম মূলত দুই প্রকার যেগুলি হল – গতানুগতিক পাঠক্রম এবং আধুনিক পাঠক্রম।

৯) ক্রয়েবেলের মতে curriculum কী?

উত্তরঃ ক্রয়েবেলের মতে মানব জাতির সামগ্রিক জ্ঞানের ক্ষুদ্র সংস্করণ-কে বলা হয় curriculum বা পাঠক্রম।

১০) মানবতাবাদীদের মতে শিক্ষার লক্ষ্য কী?

উত্তরঃ মানুষের আশা আকাঙ্ক্ষা, সুখ-দুঃখ সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করা।

১১) আদর্শবাদীদের মতে শিক্ষার প্রধান লক্ষ্য কী?

উত্তরঃ আদর্শবাদীদের মতে শিক্ষার প্রধান লক্ষ্য আত্মউপলব্ধি।

১২) প্রকৃতিবাদীদের মতে শিক্ষার লক্ষ্য কী?

উত্তরঃ প্রকৃতিবাদীদের মতে শিক্ষার লক্ষ্য প্রকৃতিকে জানা ও চেনা।

১৩) প্রাচীনকালে শিক্ষার লক্ষ্য কী ছিল?

উত্তরঃ প্রাচীনকালে শিক্ষার লক্ষ্য ছিল আত্মউপলব্ধি।

১৪) আধুনিক কালে শিক্ষার লক্ষ্য কী?

উত্তরঃ আধুনিক কালে শিক্ষার লক্ষ্য সামগ্রিক বিকাশ।

১৫) মানুষের মধ্যে দুটি সত্ত্বা থাকে, সেগুলি কী কী?

উত্তরঃ মানুষের মধ্যে থাকা সত্ত্বা দুটি হল – জৈবিক সত্ত্বা এবং সামাজিক সত্ত্বা।

১৬) পাঠক্রম ও পাঠ্যসূচির মধ্যে কোনটির আকার বড়ো?

উত্তরঃ পাঠক্রম ও পাঠ্যসূচির মধ্যে পাঠক্রমের আকার বড়ো।

১৭) পাঠক্রম প্রণয়নের তত্ত্বগত দিক কোনটি?

উত্তরঃ পাঠক্রম প্রণয়নের তত্ত্বগত দিকটি হল শিক্ষার উদ্দেশ্য।

১৮) পাঠক্রম প্রণয়নের মনোবিজ্ঞান সন্মত দিক কোনটি?

উত্তরঃ পাঠক্রম প্রণয়নের মনোবিজ্ঞান সন্মত দিকটি হল শিক্ষার্থীর চাহিদা ও সামর্থ্য।

১৯) পাঠক্রম প্রণয়নের ব্যবহারিক দিক কোনটি?

উত্তরঃ সম্ভাব্য সুযোগসুবিধা।

২০) স্পার্টার শিক্ষার লক্ষ্য কী ছিল?

উত্তরঃ দেশের জন্য প্রয়োজনীয় সৈনিক তৈরি করা।

২১) আধুনিককালের শিক্ষাবিদদের মতে curriculum কী?

উত্তরঃ আধুনিক কালের শিক্ষাবিদদের মতে curriculum হল ব্যক্তিজীবনের সার্বিক দিক সুনির্বাচিত অভিজ্ঞতা সমূহের যথাযত সমন্বয়।

২২) পাঠক্রমের কটি উপাদান ও কী কী?

উত্তরঃ পাঠক্রমের তিনটি উপাদান, যেগুলি হল – ক) শিক্ষার উদ্দেশ্য, খ) শিক্ষার্থীর চাহিদা ও সামর্থ্য এবং সম্ভাব্য সুযোগসুবিধা।

২৩) সহপাঠক্রমিক কার্যাবলী কাকে বলে?

উত্তরঃ শিক্ষার্থীর সামগ্রিক বিকাশের জন্য শ্রেণীকক্ষের পুথিগত বিদ্যা ছাড়াও অন্য যেসব কর্মসূচীতে শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে, সেগুলিকে বলা হয় সহপাঠক্রমিক কার্যাবলী। এর ইংরেজি প্রতিশব্দ extra curriculum. যেমন – বৃক্ষরোপণ, স্বাধীনতা দিবস পালন ইত্যাদি।

২৪) সহপাঠক্রমিক কার্যাবলীর শ্রেণিবিভাগগুলি কী কী?

উত্তরঃ ক) শারীরিক বিকাশে সহায়ক কার্যাবলী।

খ) মানসিক বিকাশে সহায়ক কার্যাবলী।

গ) সামাজিক বিকাশে সহায়ক কার্যাবলী।

ঘ) প্রশোবিক বিকাশে সহায়ক কার্যাবলী।

২৫) ক্রমোজোম, RNA, ম্যান্ডেলের নিতী ইত্যাদি শিক্ষাবিজ্ঞানের কোন অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়?

উত্তরঃ বংশধারা বা বংশগতি।

২৬) শিশু জৈবিক উত্তরাধিকার নিয়ে জন্মগ্রহণ করে এবং সামাজিক উত্তরাধিকারের মধ্যে জন্মগ্রহণ করে – উক্তিটি কার?

উত্তরঃ শিশু জৈবিক উত্তরাধিকার নিয়ে জন্মগ্রহণ করে এবং সামাজিক উত্তরাধিকারের মধ্যে জন্মগ্রহণ করে – উক্তিটি  স্যান্ডফোর্ড এর।

২৭) পরিবেশবাদী কাকে বলে?

উত্তরঃ যে শিক্ষাবিদরা মনে করেন ব্যক্তির অতীত, বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে আমাদের চারপাশে কী আছে, তারা আমাদের উপর কী প্রভাব ফেলছে তাদের সাথে মিথোস্ক্রিয়া প্রভৃতির উপর তাদের বলা হয় পরিবেশবাদী।

২৮) পিতামাতা উভয় যদি মেধাসম্পন্ন হয় তাদের সন্তান হবে আপোদাকৃত বাম মেধা সম্পন্ন – বিষয়টি বংশধারার কোন নীতি অনুসরণ করে?

উত্তরঃ পরাভিমুখী নীতি।

২৯) একজন বংশধরবাদী মনোবিজ্ঞানীর নাম লেখ?

উত্তরঃ উভয়ার্থ।

৩০) ব্যক্তিত্ব কাকে বলে?

উত্তরঃ বংশধারা ও পরিবেশের মিথোস্ক্রিয়ার গুণফল হল ব্যক্তিত্ব।

৩১) শ্রেণীশিক্ষণে শিক্ষকের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা কী?

উত্তরঃ শ্রেণীশিক্ষণের ক্ষেত্রে শিক্ষক সহায়কের ভুমিকা পালন করেন।

৩২) ব্যক্তির ব্যক্তিত্বকে আমরা কোন জ্যামিতিক চিত্রের সাথে বিবেচনা করতে পারি?

উত্তরঃ আয়তক্ষেত্রের ক্ষেত্রফলের সাথে।

৩৩) আধুনিক পাঠক্রমের একটি বৈশিষ্ঠ্য লেখ।

উত্তরঃ পরিবর্তনশীলতা।

৩৪) আদর্শবাদীদের মতে শিক্ষার প্রধান লক্ষ্য কী?

উত্তরঃ আত্মউপলব্ধি।

৩৫) পাঠক্রম প্রণয়নে সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কোনটি?

উত্তরঃ শিক্ষার উদ্দেশ্য পূরন।

৩৬) মাতার X ক্রোমোজোম ও পিতার X ক্রোমোজোম যুক্ত হলে কোন সন্তান সৃষ্টি হবে?

উত্তরঃ কন্যা।

৩৭) পাঠক্রম কাকে বলে?

উত্তরঃ পাঠক্রম বলতে শিক্ষার্থীদের সমস্তরকমের অভিজ্ঞতাকে বোঝায় যা তারা শ্রেণীকক্ষে, কর্মশালায়, খেলার মাঠে এবং শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে লাভ করে।

৩৮) পাঠক্রমের উপাদান কটি ও কী কী?

উত্তরঃ পাঠক্রমের উপাদান প্রধানত তিনটি, যেগুলি হল – ক) শিক্ষার উদ্দেশ্য, খ) শিক্ষার্থীর চাহিদা ও সামর্থ্য, গ) সম্ভাব্য সুযোগসুবিধা।

৩৯) পাঠক্রম প্রণয়নের ক্ষেত্রে কোন কোন বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়?

উত্তরঃ পাঠক্রম প্রণয়নের ক্ষেত্রে যে যে বিষয়ের ওপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয় সেগুলি হল – বিষয়বস্তুর প্রকৃতি, শিশুর বিকাশ, সামাজিক বিষয়, আর্থিক বিষয়, পরিবেশগত বিষয়, প্রাতিষ্ঠানিক বিষয় এবং শিক্ষণ সম্পর্কিত বিষয়।

৪০) পাঠক্রম প্রণয়নের নীতিগুলি কী কী?

উত্তরঃ পাঠক্রম প্রণয়নের নীতিগুলি হল – উদ্দেশ্যকেন্দ্রীকতার নীতি, শিশুকেন্দ্রিকতার নীতি, সামগ্রিক অভিজ্ঞতামূলক নীতি, বৈচিত্রময়তার নীতি, সৃজনশীলতা নীতি, ঐতিয্য সংরক্ষণের নীতি এবং গনতান্ত্রিকতার নীতি।

৪১) পাঠক্রমকে কয়টি ভাগে ভাগ করা হয়?

উত্তরঃ দুটি, যথা – লুক্কায়িত পাঠক্রম এবং ব্যক্ত বা লিখিত পাঠক্রম।

৪২) ব্যক্ত বা লিখিত পাঠক্রমকে কটি ভাগে ভাগ করা যায় ও কী কী?

উত্তরঃ ব্যক্ত বা লিখিত পাঠক্রমকে পাঁচটি ভাগে ভাগ করা হয়। যথা- অভিজ্ঞতাভিত্তিক পাঠক্রম, জীবনকেন্দ্রিক পাঠক্রম, কর্মকেন্দ্রিক পাঠক্রম বা সক্রিয়তাভিত্তিক পাঠক্রম, কেন্দ্রিয় পাঠক্রম এবং বিষয়কেন্দ্রিক পাঠক্রম।

৪৩) পরিবেশ প্রধানত কটি ভাগে বিভক্ত ও কী কী?

উত্তরঃ পরিবেশ প্রধানত দুটি ভাগে বিভক্ত। যথা- সামাজিক পরিবেশ ও প্রাকৃতিক পরিবেশ।

৪৪) মনোবিজ্ঞানী কটি লিউন পরিবেশকে কটি শ্রেণিতে ভাগ করেছেন ও কী কী?

উত্তরঃ তিনটি, যথা- ক) প্রাকৃতিক পরিবেশ, খ) সামাজিক পরিবেশ এবং সাংস্কৃতিক পরিবেশ, গ) মনস্তাত্ত্বিক পরিবেশ।

৪৫) বহিপাঠক্রমিক কার্যাবলী কাকে বলে?

উত্তরঃ শিক্ষার স্বার্থে শ্রেণীকক্ষের বাইরে কিছু সুপরিকল্পিত কাজ করতে হয়, এগুলিকেই বহিপাঠক্রমিক কার্যাবলী বলে। যেমন- খেলাধূলা, শরীরচর্চা, গানবাজনা প্রভৃতি।

৪৬) অবসর বিনোদনমূলক দুটি সহপাঠক্রমিক কার্যাবলী উল্লেখ করো।

উত্তরঃ ডাকটিকিট সংগ্রহ, বিদ্যালয়ে দেওয়াল পত্রিকা, প্রবন্ধে অংশগ্রহণ।

৪৭) সহপাঠক্রমিক কার্যাবলীর দুটি উপযোগিতা লেখ।

উত্তরঃ ক) এটি শিক্ষার্থীদের শারীরিক বিকাশে সহায়তা করে।

খ) শিক্ষার্থীদের মধ্যে গণতান্ত্রিক চেতনার বিকাশ ঘটায়।

৪৮) শারীরিক বিকাশে সহায়ক দুটি সহপাঠক্রমিক কার্যাবলীর নাম লেখ?

উত্তরঃ ব্রতচারী ও NCC

৪৯) মানসিক বিকাশে সহায়ক দুটি সহপাঠক্রমিক কার্যাবলীর নাম লেখ?(আত্মপ্রকাশ)

উত্তরঃ গানবাজনা ও আবৃতি।

৫০) সাংস্কৃতিক কাজের দুটি উদাহরণ দাও?

উত্তরঃ বিজ্ঞান প্রদর্শনী ও নাট্যোৎসব।

৫১) সহযোগিতামূলক দুটি কাজের উদাহরণ দাও?

উত্তরঃ আউটিং এবং সেবামূলক কাজ।

৫২) সৃজনশীল দুটি কাজের উদাহরণ দাও?

উত্তরঃ বিকল্প সমাধান ও গানবাজনা।

 

আরো পড়ুন  সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলি কাকে বলে? বিভিন্ন প্রকার সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলি এর প্রকারভেদগুলি আলোচনা করো। সহপাঠ্যক্রমিক কার্জাবলির কয়েকটি উপযোগিতা লেখো।

 

অবশেষে আপনাকে / তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ সময় করে শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলি পড়ার জন্য যা তোমাদের একাদশ শ্রেণির শিক্ষাবিজ্ঞানের বার্ষিক পরীক্ষার জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ, তাই ভালো করে শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলি পরে নিও যাতে আগামী বার্ষিক পরিক্ষায় তোমাদের কোনো অসুবিধা না হয়। আর এভাবেই www.artsschool.in এর পাশে থেকে তোমাদের সাপোর্ট দেখিয়ো জাতে ভবিষ্যতে আমরা শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলির মতো আরো গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল তোমাদের সামনে তুলে ধরতে পারি।

বিঃ দ্রঃ শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলি তৈরি করা হয়েছে কিছু অভিজ্ঞ শিক্ষকের পরামর্শ মেনে এবং তার সাথে আমরা কিছু পাঠ্য বইয়েরও সাহায্য নিয়েছি, তাই শিক্ষার তাৎপর্যপূর্ণ উপাদান প্রশ্নোত্তর গুলি যদি কোনো সমস্যা থেকে থাকে তবে ইমেল করুন আমাদের [email protected] এই ঠিকানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!